মঙ্গলবার ১৬ অক্টোবর ২০১৮
  • প্রচ্ছদ » জাতীয় » পুলিশ সদর দপ্তরে বৈঠক
    দুর্গাপূজায় গুজব ছড়ালে কঠোর ব্যবস্থা



পুলিশ সদর দপ্তরে বৈঠক
দুর্গাপূজায় গুজব ছড়ালে কঠোর ব্যবস্থা


আলোকিত সময় :
26.09.2018

অনলাইন ডেস্ক : দুর্গাপূজা সামনে রেখে ফেসবুকসহ অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গুজব ছড়ানো ঠেকাতে নজরদারি শুরু করেছে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সাইবার বিশেষজ্ঞরা। আইজিপি ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী এ সংক্রান্ত নির্দেশনাও দিয়েছেন।

বুধবার পুলিশ সদর দপ্তরে দুর্গাপূজার নিরাপত্তা নিয়ে এক বিশেষ বৈঠক থেকে তিনি এ নির্দেশনা দেন। বৈঠকে সারাদেশ থেকে ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তারা ছাড়াও হিন্দু সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিরা যোগ দেন।

বৈঠকে পুলিশ প্রধান বলেন, সাম্প্রদায়িক-সম্প্রীতি বিনষ্টের জন্য কেউ যাতে কোনো ধরনের গুজব ছড়াতে না পারে তাই সব সোশ্যাল মিডিয়া মনিটর করতে হবে। কোনো ব্যক্তি বা গোষ্ঠী ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দিয়ে প্রচারণা চালালে তা বন্ধ করে তাদের বিরুদ্ধে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেওয়ারও নির্দেশ দেন তিনি।

যথাযথ ভাবগাম্ভীর্য বজায় রেখে নিরাপদে দুর্গাপূজা উদযাপনের লক্ষ্যে নিষ্ঠা ও পেশাদারিত্বের সঙ্গে দায়িত্ব পালনের জন্য পুলিশ কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেন আইজিপি। পাশাপাশি প্রতিমা তৈরির সময় স্বেচ্ছাসেবক নিয়োগ, পূজামণ্ডপে সিসি ক্যামেরা ও অগ্নিনির্বাপণ যন্ত্র স্থাপন এবং হ্যান্ডমেটাল ডিটেক্টর ব্যবহারের জন্য পূজা উদযাপন কমিটির নেতাদেরও অনুরোধ করেন। আইজিপি বলেন, অন্য ধর্মের প্রতি সম্মান প্রদর্শনের মাধ্যমে ধর্মীয় সম্প্রীতি বজায় রাখতে হবে।

পুলিশ প্রধান আশা প্রকাশ করেন, সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টায় অতীতের মতো এবারও দেশব্যাপী শান্তিপূর্ণভাবে দুর্গাপূজা উদযাপিত হবে। এ জন্য এরই মধ্যে সব ধরনের প্রস্তুতিও নেওয়া হয়েছে।

সভায় পুলিশ সদর দপ্তরের এআইজি (অপারেশনস) সাঈদ তারিকুল হাসান দুর্গাপূজাকে সামনে রেখে নেওয়া সার্বিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা তুলে ধরেন। পরে পুলিশ কর্মকর্তারা দুর্গাপূজাকে কেন্দ্র করে নিরাপত্তা সংক্রান্ত বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা করেন।

সভায় উপস্থিত পূজা উদযাপন পরিষদ নেতারা দুর্গাপূজাকে কেন্দ্র করে নেওয়া নিরাপত্তা ব্যবস্থায় সন্তোষ প্রকাশ করে বলেন, পুলিশের সক্ষমতা অতীতের চেয়ে বর্তমানে অনেক বেড়েছে। এবার সারাদেশে প্রায় ৩০ হাজারের বেশি মণ্ডপে দুর্গাপূজার আয়োজন করা হচ্ছে।

সভায় পুলিশ সদর দপ্তরের অতিরিক্ত আইজিপি মোখলেসুর রহমান, অতিরিক্ত আইজিপি মহসিন হোসেন, অতিরিক্ত আইজিপি মইনুর রহমান চৌধুরী, এপিবিএনের অতিরিক্ত আইজিপি সিদ্দিকুর রহমান, রেলওয়ে পুলিশের অতিরিক্ত আইজিপি মোহাম্মদ আবুল কাশেম, শিল্পাঞ্চল পুলিশের অতিরিক্ত আইজিপি আবদুস সালাম, সব রেঞ্জ ডিআইজি ও মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার, সংশ্লিষ্ট জেলার পুলিশ সুপাররা ছাড়াও পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি মিলন কান্তি দত্ত ও সাধারণ সম্পাদক নির্মল কুমার চ্যাটার্জি, ঢাকা মহানগর সার্বজনীন পূজা কমিটির সভাপতি শৈলেন্দ্র নাথ মজুমদার, এনএসআই, ডিজিএফআই, আনসার ও ভিডিপি, ঢাকা সিটি করপোরেশন এবং ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি