মঙ্গলবার ১৬ অক্টোবর ২০১৮



‘এখানেতো কোন বরাদ্দ নেই, খরচ বাবদ ১০ টাকা নিতে পারে’


আলোকিত সময় :
18.09.2018

রাঙ্গাবালী (পটুয়াখালী) সংবাদাতা :

জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণে পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলার চরমোন্তাজ ইউনিয়নে টাকা আদায় করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। সোমবার থেকে মঙ্গলবার পর্যন্ত চরমোন্তাজ ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে এ পরিচয়পত্র বিতরণ করা হয়।
ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, দুইদিন ব্যাপী সরকার কর্তৃক বিনামূল্যের হালনাগাদকৃত জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণে উপজেলার চরমোন্তাজ ইউনিয়নে জনপ্রতি ২০ টাকা করে আদায় করা হয়েছে। আর যার টোকেন নেই, তার ১২০ টাকা দিতে হয় । নির্ধারিত অংকের এ টাকা দিয়েই পরিচয়পত্র সংগ্রহ করতে হয়। ওই ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা সুমন দর্জি বলেন, ‘২০ টাকা দিয়ে ভোটার আইডি কার্ড (জাতীয় পরিচয়পত্র) ছাড়াইছি। টোকেন না থাকলে ১২০ টাকা দিয়ে আইডি কার্ড আনতে হয়।’
সরেজমিনে দেখা গেছে, উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয়ের ডাটা-এন্ট্রি অপারেটর আল আমিনের উপস্থিতিতে কয়েকজন ব্যক্তি জাতীয় পরিচয়পত্র বাবদ টাকা আদায় করছেন। তিনি সেখানে পরিচয়পত্র বিতরণের দায়িত্বে নিয়োজিত ছিলেন। অথচ এ বিষয়ের সত্যতা পাওয়া গেলেও ডাটা-এন্ট্রি অপারেটর আল আমিন বলেন, ‘কে টাকা নিচ্ছে? কই কেউ নিতেছেনাতো। কেন নিতেছে, আপনি তাদের কাছে জিজ্ঞস করেন।’ এসময় কয়েকজন ভুক্তভোগী এসে তার (আল আমিন) কাছে টাকা আদায়ের বিষয়টি মৌখিকভাবে জানালেও তিনি নীরব ভূমিকায় ছিলেন।
জানতে চাইলে চরমোন্তাজ ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান হানিফ মিয়া বলেন, ‘নির্বাচন অফিসের লোক এসে আইডি কার্ড বিতরণ করেছে। এর সাথে আমাদের কোন সম্পৃক্ততা নেই।’ উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা (অতিরিক্ত দায়িত্বে) জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, ‘১০১৪-১৭ সাল পর্যন্ত হালনাগাদকৃত ২২শ’ লেমিনেটিং ভোটার আইডি কার্ড চরমোন্তাজে বিতরণ করা হয়। এখানেতো কোন বরাদ্দ নেই। হয়তো খরচ বাবদ ১০ টাকা নিতে পারে। তাও কোন নির্দেশনা নেই। চেয়ারম্যান-মেম্বারদের সহযোগিতায় বিতরণ করবে।’
এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (অতিরিক্ত দায়িত্বে) তৌছিফ আহম্মেদ বলেন, ‘এ ঘটনাটি আমি শুনিনি। তবে খোঁজ নিয়ে সত্যতা পাওয়া গেলে ব্যবস্থা নিব।’



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি