সোমবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮
  • প্রচ্ছদ » আজকের পত্রিকা » মুক্তিযোদ্ধা সংসদ চট্টগ্রাম মহানগর ইউনিট কমান্ডের উদ্যোগে বিদায়ী ডিআইজি ও নবাগত সিএমপি কমিশনারকে সংবর্ধনা প্রদান



মুক্তিযোদ্ধা সংসদ চট্টগ্রাম মহানগর ইউনিট কমান্ডের উদ্যোগে বিদায়ী ডিআইজি ও নবাগত সিএমপি কমিশনারকে সংবর্ধনা প্রদান


আলোকিত সময় :
12.07.2018

আলোকিত নিউজ ডেস্ক :
বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ চট্টগ্রাম মহানগর ইউনিট কমান্ডের উদ্যোগে পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের বিদায়ী ডিআইজি বীর মুক্তিযোদ্ধা ড.এস.এম মনির-উজ-জামান, বিপিএম, পিপিএম ও চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) নবাগত কমিশনার মো. মাহাবুবর রহমান, বিপিএমকে সংবর্ধনা প্রদান করা হয়েছে। গতকাল (১১ জুলাই) বুধবার বিকেল ৫টায় নগরীর কোতোয়ালী থানাধীন দারুল ফজল মার্কেটস্থ মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের শুরুতে সংসদের মহানগর ইউনিট কমান্ডার মোজাফফর আহমদের নেতৃত্বে দুই অতিথিকে ক্রেস্ট ও ফুল দিয়ে সংবর্ধনা জ্ঞাপন করেন বীর মুক্তিযোদ্ধাগণ এবং মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের নেতৃবৃন্দ।
বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ চট্টগ্রাম মহানগর ইউনিট কমান্ডার মোজাফফর আহমদের সভাপতিত্বে ও সহকারী কমান্ডার সাধন চন্দ্র বিশ^াসের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সংবর্ধিত অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের বিদায়ী ডিআইজি বীর মুক্তিযোদ্ধা ড. এস.এম. মনির-উজ-জামান, বিপিএম, পিপিএম ও সিএমপি কমিশনার মো. মাহাবুবর রহমানম পিপিএম। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা নাঈম উদ্দিন চৌধুরী, মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ¦ বদিউল আলম, যুদ্ধকালীন ব্যাজ কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু সাঈদ সর্দার, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্রীড়া চক্র (লাল) চট্টগ্রামের সাবেক প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও হোটেল সেন্টমার্টিন লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বীর মুক্তিযোদ্ধা জাকির হোসেন মিজান, বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল হক বীর প্রতীক, যুদ্ধকালীন সিএনসি স্পেশাল বীর মুক্তিযোদ্ধা জাহাঙ্গীর চৌধুরী ও সিএমপির উপ-পুলিশ কমিশনার (দক্ষিণ) এস.এম. মোস্তাইন হোসাইন। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ মো. ইসহাক, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ চট্টগ্রাম মহানগর ইউনিটের সহকারী কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা পান্টু লাল সাহা, সহকারী কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা এফ এফ আকবর খান, সহকারী কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা খোরশেদ আলম (যুদ্ধাহত), সহকারী কমান্ডার মোহাম্মদ হোসেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা দেবাশীষ গুহ বুলবুল, বীর মুক্তিযোদ্ধা নৌ কমান্ডো আবদুল খালেক, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মোহাম্মদ সরওয়ার আলম চৌধুরী মনি, সন্তান কমান্ড চট্টগ্রাম মহানগরীর যুগ্ম আহŸায়ক শাহেদ মুরাদ সাকু, যুগ্ম আহবায়ক মিজানুর রহমান সজীব ও সিনিয়র সদস্য মো. সাজ্জাদ হোসেন, জুনায়েদ আহমেদ, রিপন চৌধুরী, রাকিবুল ইসলাম, মো. জয় উদ্দিন, সৈয়দ ওমর, বিবি গুল জান্নাত প্রমুখ। অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ চট্টগ্রাম মহানগর ইউনিট ও থানা কমান্ডের বীর মুক্তিযোদ্ধাগণ উপস্থিত ছিলেন।
সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের বিদায়ী ডিআইজি বীর মুক্তিযোদ্ধা ড. এস.এম. মনির-উজ-জামান,বিপিএম, পিপিএম বলেন বীর মুক্তিযোদ্ধারা জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে মহান মুক্তিযুদ্ধে বীর মক্তিযোদ্ধারা পাকিস্তানি বর্বর বাহিনীদের বিতাড়িত না করলে আমরা ‘বাংলাদেশ’ নামক একটি স্বাধীন রাষ্ট্র পেতাম না। জাতির পিতার কন্যা ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকার ক্ষমতায় আসার পর দেশ অর্থনৈতিকভাবে এগিয়ে যাচ্ছে। সন্ত্রাস, মাদক ও জঙ্গিবাদ নির্মূলে পুলিশ বাহিনী আন্তরিকভাবে কাজ করে যাচ্ছে। কিন্তু মুক্তিযুদ্ধের বিপক্ষের শক্তি দেশের উন্নয়নে বাধাগ্রস্ত করতে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ কায়েম করে দেশে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টিসহ নানান রকম ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ড অব্যাহত রাখাসহ দেশকে মাদক, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ মুক্ত রেখে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করলে আগামীতে এ দেশ বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলায় পরিণত হবে। চট্টগ্রামে কর্মকালীন সময়ে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের আন্তরিক সহযোগিতার কথা স্মরণ করেন তিনি।
সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সংবর্ধিত চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) নবাগত কমিশনার মো. মাহাবুবর রহমান, পিপিএম বলেন, চট্টগ্রাম নগরীর আইন-শৃঙ্খলার উন্নয়নে বীর মক্তিযোদ্ধাগণসহ সকলের আন্তরিকত সহযোগিতা প্রয়োজন। বীর মক্তিযোদ্ধাগণ না হলে আমরা আজ সম্মানের সাথে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে পারতাম না। বীর মুক্তিযোদ্ধাদের কল্যাণে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার মহৎ উদ্যোগ প্রশংসার দাবিদার। মুক্তিযোদ্ধাদের যে কোন সমস্যা ও পরামর্শের জন্য পুলিশ কমিশনারের আন্তরিকতা সহযোগিতা সব সময় থাকবে। সন্ত্রাস, মাদক ও জঙ্গিবাদ নির্মুলে সিএমপির সকল পুলিশ কর্মকর্তা ও সদস্যকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে নিরপেক্ষভাবে কাজ করতে হবে। এর ব্যত্যয় ঘটলে কাউকে ছাড় দেয়া হবে না।
বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ চট্টগ্রাম মহানগর ইউনিট কমান্ডার মোজাফফর আহমদ বীর মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের সন্তানদের যে কোন প্রয়োজনে ডিআইজি ও পুলিশ কমিশনারের আন্তরিক সহযোগিতা কামনা করে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসমুক্ত দেশ গড়ার আহবান জানান।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি