মঙ্গলবার ২০ নভেম্বর ২০১৮



মাতামুহুরীর ভাঙ্গনে বিলীন হচ্ছে লামা পৌরসভা : আতংকে সহস্রাধিক পরিবার


আলোকিত সময় :
10.07.2018

বান্দরবান প্রতিনিধি :

পাহাড়ী ঢলে সৃষ্ট বন্যায় সম্প্রতি একাধিকবার প্ল­াবিত হয় লামা পৌরসভাসহ উপজেলার প্রত্যন্ত এলাকা। বন্যা পরিস্থিতি উন্নতির সাথে সাথে প্রমত্তা মাতামুহুরীর ভাঙন তীব্র আকার ধারণ করে। এ নদীর ভাঙনে বিলীন হয়ে যাচ্ছে লামা পৌরসভার সড়ক ও জনবসতি। অব্যাহত ভাঙনের কবলে পড়ে অনেকেই বসতভিটা হারিয়েছে। বর্তমানে ভাঙন আতংকে রয়েছে উপজেলার নদী তীরবর্তী সহস্রাধিক পরিবার, গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা এবং ফসলি জমি। মাতামুহুরীর ভাঙন রোধকল্পে জরুরী ভিত্তিতে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সরকারের প্রতি জোর দাবি তুলেছেন স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও ক্ষতিগ্রস্তরা।

সূত্র জানায়, আলীকদম থেকে বয়ে আসা মাতামুহুরী নদী লামা উপজেলার বুক চিরে সর্পিল গতিতে ক্রমশ নীচের দিকে বয়ে গেছে। শুষ্ক মৌসুমে পাহাড়ী এ নদী অনেকটা মরা নদীতে পরিণত হলেও বর্ষা মৌসুমে প্রমত্তা আকার ধারণ করে। বর্ষা মৌসুমে মাত্র কয়েক ঘন্টার মুষলধারে বৃষ্টির ফলে পাহাড়ী ঢলে বন্যা সৃষ্টি করে লণ্ডভণ্ড করে দেয় তীরবর্তী স্থানের রাস্তাঘাট, ব্রিজ-কালভার্ট, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও হতদরিদ্র পরিবারগুলোর সাজানো সংসার। পাহাড়ী ঢলের পানি কমে যাওয়ার সাথে সাথে তীব্র আকার ধারণ করে নদী ভাঙন।
গত কয়েক বছরে এ নদীর ভাঙনে উপজেলার কয়েকশ ঘরবাড়ি, সরকারি বেসরকারী প্রতিষ্ঠান, রাস্তাঘাট ও শতাধিক একর ফসলী জমি নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। এ বছর জুন মাসে পাহাড়ী ঢলে একাধিকবার লামা বন্যা কবলিত হওয়ার পর নদী ভাঙন তীব্র আকার ধারণ করেছে।

গত সপ্তাহে নদী ভাঙনের কবলে পড়ে বিলীন হওয়ার উপক্রম হয়েছে ৬০ লক্ষাধিক টাকা ব্যয়ে সদ্য সংস্কার করা লামা পৌরসভার ৬ নং ওয়ার্ডের জনগুরুত্বপূর্ণ সাবেক বিলছড়ি সড়ক। ইতিমধ্যে প্রায় ১শ ফুট রাস্তা নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। এছাড়া সড়কের বিশাল অংশে ফাটল সৃষ্টি হয়েছে। যে কোন মুহূর্তে সে অংশটিও নদী গর্ভে বিলীন হতে পারে। এছাড়া লামা পৌর এলাকার বিভিন্ন অংশে নদী ভাঙন তীব্র আকার ধারণ করেছে। মাতামুহুরীর করাল স্রোতের টানে দু’কূল ভাঙনে পৌরএলাকার কুড়ালিয়ারটেক, লামামুখ বাজার, সাবেক বিলছড়ি, লাইনঝিরি, হরিণঝিরি, শিলেরতুয়া, চাম্পাতলী, টি.টি এন্ড ডিসি, হাসপাতাল পাড়া, স’মিল পাড়া, লামা বাজার পাড়া, বাজার ঘাট সংলগ্ন ফরেষ্ট অফিস এলাকায় ভাঙন বৃদ্ধি পেয়েছে।

অপরদিকে, মাতামুহুরী নদীর অব্যাহত ভাঙনের কবলে পড়ে লামা সদর ইউনিয়নের মেরাখোলা, মেউলারচর, রূপসী পাড়ার অংহ্লাপাড়া, শীলেরতুয়া এলাকার শত শত পরিবার বসতভিটে ও ফসলী জমি হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে পড়েছে। এ দুই ইউনিয়নে শত শত ঘরবাড়ি ও ফসলী জমি নদী গর্ভে বিলীন হওয়ার পর বর্তমানে ২০টির অধিক গ্রাম ভাঙন আতংকে রয়েছে। নদীর তীরবর্তী স্থানে অবস্থিত এসব গ্রামের মানুষের বসতভিটা ও ফসলী জমি, ব্রিজ, কালভার্ট এবং লামা পৌর এলকার প্রায় ৫০ কোটি টাকার স্থাপনা ও ফসলী জমি ভাঙনের হুমকি মুখে রয়েছে বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন। ভাঙন পীড়িত পরিবারগুলো এখন বসবাস করছে অন্যের বাড়ীতে কিংবা আশ্রয়ন প্রকল্পের বাসিন্দা হয়ে। শত শত বিঘা জমির মালিকরা আজ ভূমিহীন।

অচিরেই এ নদী ভাঙন রোধ করা না গেলে আগামী কয়েক বছরে মধ্যেই লামা পৌরসভাসহ পার্শ্ববর্তী লামা ও রুপসী ইউনিয়নের মানচিত্র পাল্টে যেতে পারে বলে মনে করছেন স্থানীয়রা।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি