সোমবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮



ধামরাইয়ে সাত বছরের শিশু ধর্ষণের রেশ না কাটতেই আবারও ইয়াবা খাইয়ে শিশু ধর্ষণ


আলোকিত সময় :
08.07.2018

ধামরাই (ঢাকা) সংবাদদাতাঃ
গত কয়েকদিন আগে ধামরাই উপজেলায় প্রথম শ্রেণির ছাত্রী সাত বছরের শিশু পূর্ণিমা আক্তারকে গণ ধর্ষণের পর হত্যা করার কয়েক দিন না যেতেই আবারও এগার বছরের এক শিশুকে ইয়াবা খাইয়ে ধর্ষণ করা হয়েছে।
ধর্ষীতার বড় বোন রাবেয়া আক্তার বলেন, গত মঙ্গলবার বিকালে আমার বান্ধবী রিমা ধামরাই থেকে আশুলিয়ার মধ্য গাজীরচটে আমার বাসায় আসে। এসময়ই আমার মা হঠাৎ অসুস্থ হওয়ায় তাকে ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাই, আমার বান্ধবি রিমা আক্তার (১৮) কে আমার ছোট বোনের  কাছে আমার বাসায় রেখে যাই। সেখান থেকে এসে আমার বোন এবং বান্ধবীকে খোঁজ করে না পেয়ে আশুলিয়া থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করি। তার একদিন পরেই আমার বাসার সামনে আমার বোনকে অসুস্থ অবস্থায় দেখতে পাই। সে বলে, বেড়ানোর কথা বলে রিমা আপু আমাকে ধামরাই নিয়ে যায়। পরে আমার বোনকে এনাম ক্লিনিকে নিয়ে যাই। অবস্থা খারাপ হলে সেখান থেকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাই।

যানা যায়, টাকার বিনিময়ে ১ দিনের জন্য দেবাশীষ চৌধুরি (৪০) নামের এক লোকের কাছে রিমা আক্তার মেয়েটিকে দেয়। দেবাশীষ তার ধামরাই ধানের মিলের নিজ অফিসে সারারাত এবং তার পরদিন দুপুর পর্যন্ত ইয়াবা খাইয়ে কয়েকবার ধর্ষণ করে। পরদিন বিকালে মেয়ের অবস্থা খারাপ হয়ে গেলে রিমা আক্তরকে ডেকে তার কাছে ফিরিয়ে দেয়। রিমা আক্তার মেয়েটিকে নিয়ে আশুলিয়ায় মেয়েটির বাসার সামনে রেখে আসে।

এস আই কালাম বলেন, ধর্ষিতার বড় বোন বাদি হয়ে দুই জনকে আসামী করে ধামরাই থানায় একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেছেন। যার মামলা নং-৮/২০৯, তারিখ ৬ জুলাই, ২০১৮। গতকাল রাতে অভিযান চালিয়ে ২নং আসামী মোসাঃ রিমা আক্তারকে গ্রেফতার করে ৫ দিনের রিমান্ড চাইলে আদালত এক দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এক নং আসামী দেবাশীষ (৪০) এখনও পলাতক রয়েছে। অভিযান অব্যাহত রয়েছে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি