বৃহস্পতিবার ১৬ অগাস্ট ২০১৮



ইন্টেরিয়র ডিজাইন সেক্টরে সফল তরুণ ব্যবসায়ী মারুফ


আলোকিত সময় :
18.08.2017

নিজস্ব প্রতিবেদক : বর্তমানে দিনে দিনে ইন্টেরিয়র ডিজাইন ব্যবসা আমাদের দেশে খুবই জনপ্রিয়তা পাচ্ছে। দেশের অনেক জায়গায়ই ইন্টেরিয়র ব্যবসায় অদক্ষ ও আনাড়ী প্রকৃতির ব্যবসায়ীদেরকেও দেখা যায় সেখানে আশার বাণী হলো বর্তমান সময়ে কিছু উদ্দ্যোমী তরুণ যারা দক্ষ ও উচ্চ শিক্ষিত তারাও এপেশায় যোগদান করেছে, ব্যবসা শুরু করেছে। তারা ইন্টেরিয়র ডিজাইন এর প্রতিটি প্রজেক্ট অত্যন্ত নিখুতভাবে বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে। সেখানে তাদের দক্ষ ও অভিজ্ঞ ইঞ্জিনিয়ার, দক্ষ আর্কিটেক্ট, দক্ষ ডিজাইনার এর একটি বিশেষ টিম সবসময় কাজ করছে। ইন্টেরিয়র ডিজাইন ফার্ম ব্যবসায় এমন একজন পেশাদার, দক্ষ ও সফল তরুণ ব্যবসায়ীর নাম মারুফ লিয়াকত। তার ফার্ম ” ইন্টেরিয়র স্টুডিও “।

এ বিষয়ে তিনি দৈনিক আলোকিত সময় কে এক বিশেষ সাক্ষাৎকার দিয়েছেন। তার সাক্ষাৎকার নিয়েছেন আমাদের সিনিয়র রিপোর্টার মো.জুয়েল আহমেদ।

সাক্ষাৎকারটি তুলে ধরা হলো –

দৈনিক আলোকিত সময় : আপনার জীবনের প্রথম কর্মস্থল সম্পর্কে কিছু বলেন?

মারুফ লিয়াকত : সেদিনটির কথা মনে পড়লেই অনেক ভালো লাগে যেদিন আমার জীবনের প্রথম ইন্টারভিউ ছিলো। জীববনের প্রথম ইন্টারভিউতেই টিকে গিয়েছিলাম। বাংলাদেশের একটি স্বনামধন্য ডেভেলপমেন্ট কোম্পানী অ্যাডভান্সড ডেভেলপমেন্ট এ ২০১০ সালে জয়েন করি। আমার ইন্টারভিউ নিয়েছিলেন সেদিন অ্যাডভান্সড ডেভেলপমেন্ট এর অপারেটিং ডিরেক্টর আরিফ আর হোসাইন। প্রায় ৫৮ মিনিট তিনি আমার ইন্টারভিউ নিয়েছিলেন। আমি ঐ ৫৮ মিনিটই তার সকল প্রশ্নের উত্তর সঠিক ও সাবলীলভাবে দিয়েছিলাম। এজন্যই হয়তোবা প্রথম ইন্টারভিউতেই আমার জবটা হয়ে গিয়েছিলো।

দৈনিক আলোকিত সময় : পরবর্তীতে আর কোন কোন কোম্পানীতে জব করেছেন?

মারুফ লিয়াকত : এরপর দেশের অন্যতম একটি স্বনামধন্য রিয়েলস্টেট কোম্পানী অ্যাসেট ডেভেলপমেন্টে জয়েন করি। সর্বশেষে বহুজাতিক কোম্পানী সুনশীন গ্রুপের সেভেন রিংস সিমেন্ট বিভাগে জব করি।

দৈনিক আলোকিত সময় : ইন্টেরিয়র স্টুডিও আপনার এই উদ্দ্যোগ নিয়ে কিছু বলেন?

মারুফ লিয়াকত : রিয়েলস্টেট কোম্পানী অ্যাসেট ডেভেলপমেন্টে জব করা কালীন সময়ে ইন্টেরিয়র ডিজাইন ফার্ম সম্পর্কিত অনেক কিছু দেখেছি ও শিখেছি। প্রথমে রিয়েলস্টেট ব্যবসা শুরু করতে চেয়েছিলাম। কিন্তু ঐ মুহূর্তে এত টাকা ছিলো না। তাই সবকিছু চিন্তা করে জব করাকালীন সময়েই ইন্টেরিয়র ডিজাইন ফার্ম ইন্টেরিয়র স্টুডিও শুরু করি। যখন দেখলাম আমার ব্যবসায় ভালো লাভ হচ্ছে তখন চাকুরী থেকে রিজাইন করে পুরোপুরি নিজস্ব ব্যবসায় মনোনিবেশ করি। এখন আমার ব্যবসা ভালো যাচ্ছে।

দৈনিক আলোকিত সময় : এত অল্প বয়সেই একটি সফল ইন্টেরিয়র ফার্ম এর সি.ই.ও হিসেবে কর্মরত রয়েছেন, বিষয়টি আপনার কেমন লাগে?

মারুফ লিয়াকত : বিষয়টিকে আমি খুবই এনজয় করি। তবে প্লানমাফিক ধৈর্য্য সহকারে যেকোনো কাজ করলে, সেখানে সফলতা আসতে বাধ্য, সফল ব্যক্তিদের জীবনী তাই ই বলে।

দৈনিক আলোকিত সময় : তরুণরা যদি নতুনভাবে কোন ব্যবসা শুরু কররতে চায়, তাহলে তাদের উদ্দ্যেশ্যে কি আপনার কিছু বলার আছে?

মারুফ লিয়াকত :হ্যা, অবশ্যই তরুণদের উদ্দ্যেশ্যে বলার রয়েছে। তরুণদের উদ্দ্যেশ্যে বলতে চাই যে, তোমরা যে ব্যবসা ই করতে চাও না কেন, ঐ ব্যবসা সম্পর্কে বাস্তব অভিজ্ঞতা, ঞ্জান অর্জন কররে তারপর নতুন কোন ব্যবসায় নামা উচিত। পূর্বে এক বা একাধিক কোম্পানীতে জবের অভিজ্ঞতা থাকলে সেই অভিজ্ঞতার আলোকে নিজের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে আরো ভালোভাবে পরিচালনা করা যায়।

সর্বশেষে তরুণদের উদ্দ্যেশ্যে একটি কথাই বলতে চাই, সঠিক পথে ধৈর্য্য ধরে পরিশ্রম করলে তোমাদের সফলতা কেউ আটকাতে পারবে না।

 



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি