বৃহস্পতিবার ১৬ অগাস্ট ২০১৮



মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটের ১০ ভাষা শিক্ষা প্রকল্প


আলোকিত সময় :
12.02.2017

বাস্তবায়ন কাজ দ্রুত শুরু করা দরকার

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউট দশটি ভাষা শেখানোর কার্যক্রম হাতে নিতে যাচ্ছে। এজন্য ৩টি ডিজিটাল ল্যাঙ্গুয়েজ ল্যাবরেটরি স্থাপন করা হচ্ছে। ভাষার মাসেই নেওয়া হচ্ছে এ উদ্যোগ। বাংলাসহ ইংরেজি, আরবি, চাইনিজ, জাপানিজ, কোরিয়ান, মালয়েশিয়ান, ফ্রেঞ্চ, জার্মান ও রাশিয়ান ভাষা প্রশিক্ষণ দেওয়াই এ প্রকল্পের লক্ষ্য।
পত্রিকার খবরে প্রকাশ যে, দশটি ভাষা শেখানোর জন্য একটি প্রকল্প হাতে নিচ্ছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এটি বাস্তবায়িত হলে নির্বাচিত ভাষাগুলোর জন্য বিষয়ভিত্তিক বিশেষজ্ঞ দিয়ে কারিকুলাম ও সিলেবাস তৈরি করা হবে। ফলে বহুভাষায় পারদর্শী দক্ষ জনশক্তি তৈরি করা যাবে, যারা বিশ্বের অন্য জাতিসমূহের সঙ্গে প্রতিযোগিতা করে টিকে থাকবে এবং দেশের জন্য বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করতে পারবে।
প্রকল্পটি বাস্তবায়নে মোট ব্যয় প্রস্তাব করা হয়েছে ১৮ কোটি ৭২ লাখ টাকা। প্রক্রিয়াকরণ শেষে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন পেলে চলতি বছর থেকে ২০১৮ সালের জুনের মধ্যে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউট। ইতোমধ্যে প্রকল্প মূল্যায়ন কমিটির (পিইসি) সভা করেছে পরিকল্পনা কমিশন। গত ২৬ জানুয়ারি প্রস্তাবিত প্রকল্পটির ওপর প্রকল্প মূল্যায়ন কমিটির (পিইসি) সভা অনুষ্ঠিত হয়।
ভাষা আন্দোলনের এই মাসে এ ধরনের একটি প্রকল্প প্রস্তাব নিঃসন্দেহে প্রশংসনীয় এবং তাৎপর্যপূর্ণ ও অত্যন্ত গুরুত্ববহ। জানা গেছে শুরুতে দশটি ভাষা শেখানোর কাজ হাতে নেওয়া হলেও পরবর্তী পর্যায়ে ভাষার সংখা আরও বাড়ানো হতে পারে।
এ প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে দেশের মানুষ যেমন উপকৃত হবেন, প্রকারান্তরে দেশও উপকৃত হবে। বিদেশ গমনেচ্ছুরা প্রয়োজন মতো সেই দেশের ভাষা শিখে যেতে পারলে অনেক ভালো কাজ জোগাড় করতে পারবেন। বিশ্বায়নের যুগে বিশ্বের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ভাষায় কথা বলতে পারলে সেদেশের শ্রম বাজারে প্রবেশ করা সহজ হবে। ব্যক্তিগতভাবে অথবা প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয় অথবা শ্রম মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে যারা বিদেশে কাজের সুযোগ পাচ্ছেন তারা সরকারিভাবে ভাষার প্রশিক্ষণ গ্রহণ করলে বিদেশি ভাষায় যোগাযোগ করা সহজ হবে। ব্যবসা-বাণিজ্য, উচ্চ শিক্ষা, গবেষণা, ট্যুরিজম ইত্যাদি ক্ষেত্রে বিদেশি ভাষায় দক্ষতা দেশের জন্য সুফল বয়ে আনবে। বাংলাদেশ সরকারের ভিশন-২০২১ এবং এসডিজির লক্ষ্য অর্জনে বিশ্বের বিভিন্ন ভাষায় দক্ষতা অর্জন দেশের উন্নয়নে ইতিবাচক ভ‚মিকা রাখবে। তাই বাংলাদেশি শ্রমিকদের বিদেশে গমন নির্ধারিত হওয়ার পর আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটে সম্পূর্ণ সরকারিভাবে বিনা খরচে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে বিদেশে পাঠানো হবে সরকারের জন্য একটি বড় সাফল্য। প্রকল্পটি যাতে দ্রুত অনুমোদন লাভ করে এবং বাস্তবায়ন কাজ এগিয়ে নেওয়া যায় সেজন্য সংশ্লিষ্ট সকল কর্তৃপক্ষের আন্তরিক প্রচেষ্টা গ্রহণ করা প্রয়োজন।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি